add

ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

মোহামেডানকে হারিয়ে ট্রেবল জয়ের স্বপ্নপূরণ বসুন্ধরার

স্পোর্টস ডেস্ক    

 প্রকাশিত: মে ২২, ২০২৪, ০৮:১৬ রাত  

ফাইনালটা হলো যুদ্ধের মতোই। লড়াই হলো বাগে বাগে। যে লড়াইয়ে শেষ হাসি বসুন্ধরা কিংসের। ময়মনসিংহের রফিক উদ্দিন ভূঁইয়া স্টেডিয়ামে ১২০ মিনিটের রুদ্ধশ্বাস ফাইনালে মোহামেডানকে ২-১ গোলে হারিয়ে ফেডারেশন কাপের শিরোপা জিতেছে কিংস।

এতে করে ট্রেবল জয়ের স্বপ্নও পূরণ হয়েছে অস্কার ব্রুজনের দলের। স্বাধীনতা কাপ, বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের পর তারা জিতলো ফেডারেশন কাপ। এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হলো বসুন্ধরা কিংস।

নির্ধারিত ৯০ মিনিটে ছিল ১-১ ড্র। ম্যাচে প্রথমে এগিয়ে গিয়েছিল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন মোহামেডানই। কিন্তু সেখান থেকে নির্ধারিত সময়ে একটি দিয়ে সমতা এবং অতিরিক্ত সময়ে আরেক গোল দিয়ে ম্যাচ নিজের করে নেয় কিংস।

অপেক্ষাকৃত শক্তিশালী দল কিংসের বিপক্ষে সতর্ক শুরু ছিল মোহামেডানের। প্রতিপক্ষের সীমানায় চড়াও হওয়ার চেয়ে নিজেদের রক্ষণ সুরক্ষিত রাখতেই বেশি তৎপর ছিল সাদাকালোরা।

সে সুযোগে বসুন্ধরা কিংস বেশ কয়েকবার পরীক্ষায় ফেলেছিল মোহামেডানের গোলরক্ষক সুজনকে। এর মধ্যে ব্রাজিলিয়ান ডরিয়েলটনের খুব কাছ থেকে নেওয়া একটি শট আটকে দিয়ে দলকে নিশ্চিত গোল খাওয়া থেকে বাঁচিয়েছেন মোহামেডানের গোলরক্ষক।

প্রথমার্ধের শেষ ৫ মিনিটে নিজেদের খোলস থেকে বের করে প্রতিপক্ষের ওপর চড়াও হয় মোহামেডান। শেষ ৫ মিনিটে দুটি সুযোগও তৈরি করে তারা। দুটি সুযোগই এসেছিল গোলমেশিন খ্যাত সোলেমান দিয়াবাতের সামনে। প্রথমবার বাঁচিয়েছেন কিংসের গোলরক্ষক মেহেদী হাসান শ্রাবণ, দ্বিতীয়বার রুখে দিয়েছে রক্ষণভাগ।

দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে বদলে যাওয়া মোহামেডান। তবে শুরুর দিকে ডরিয়েলটন একটা সুযোগ মিস করার পর থেকেই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ চলে যায় মোহামেডানের হাতে। প্রথমার্ধে অনেকটা অলস সময় কাটানো কিংসের গোলরক্ষক শ্রাবণকে দ্বিতীয়ার্ধে ব্যতিব্যস্ত করে রাখেন মোহামেডানের ফরোয়ার্ডরা।

৫৯ থেকে ৬৪ মিনিটে তিনটি নিশ্চিত গোল থেকে দলকে বাঁচিয়েছেন কিংসের গোলরক্ষক। তবে চতুর্থবার দলকে বাঁচাতে পারেননি শ্রাবণ। বক্সের বাইরে থেকে এমানুয়েল সানডের দুর্দান্ত শট পোস্ট ঘেঁষে জড়িয়ে যায় জালে।

ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলো মোহামেডান। গফুরবেক, বিশ্বনাথ, শ্রাবণরা মোহামেডানের আক্রমণগুলো রুখে দিয়েছেন বারবার। গোলপোস্টে বীরত্ব কম দেখাননি মোহামেডানের গোলরক্ষক সুজনও। ৭৬ মিনিটে ডরিয়েলটনের শট রুখে দিয়েছেন তিনি।

৮০ মিনিটে রবসনের বুলেটশট ফিরে আসে মোহামেডানের পোস্টে লেগে। পাল্টা আক্রমণ থেকে সোলেমান দিয়াবাতের শট রুখে দেন কিংসের গোলরক্ষক।

ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ কাজে লাগাতে না পারার খেসারত দিতে হয়েছে মোহামেডানেকে ৮৬ মিনিটে গোল হজম করে। রবসনের দুটি শট রুখে দিয়েছিলেন মোহামেডানের গোলরক্ষক। কিন্তু ৮৬ মিনিটে মিগুয়েলের শট আটকাতে পারেননি সুজন। নাটকীয়ভাবে ম্যাচে ফেরে কিংস। তারপর ম্যাচ গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।

অতিরিক্ত সময়ে ম্যাচের ১০৫ মিনিটের মাথায় কর্নার থেকে নেওয়া শট মোহামেডান গোলরক্ষকের হাত ফসকে গেলে ফাঁকায় দাঁড়ানো জাহিদ হোসেন ভুল করেননি। বল জালে পাঠিয়ে কিংসকে এগিয়ে দেন ২-১ ব্যবধানে। শেষ পর্যন্ত ওই ব্যবধানে জিতেই মাঠ ছাড়ে ব্রুজনের দল।

দৈনিক সরোবর/এএল