add

ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বয়সকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে এভাবেই ফুটবল খেলে যাবেন রোনালদো

স্পোর্টস ডেস্ক  

 প্রকাশিত: মে ১৭, ২০২৪, ০২:৪২ দুপুর  

বয়স ৩৯ পেরিয়ে গেলেও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো যেন থামার নামই নিচ্ছেন না। এই বয়সেও গোলের মালা সাজিয়ে যাচ্ছেন, প্রতিনিয়ত টেক্কা দিচ্ছেন তরুণ ফুটবলারদের। বয়সকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে এভাবেই উঁচু মানের খেলা চালিয়ে যেতে চান এই পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড।

সৌদি ক্লাব আল নাসরের হয়ে চলতি মৌসুমে ৪১ ম্যাচ খেলে ৪২ গোল করেছেন রোনালদো। ক্যারিয়ারের এমন পড়ন্ত বেলায়ও নিজেকে ধারবাহিক রাখতে পেরে গর্বিত বোধ করেন তিনি। শুধু তা-ই নয়, অবিশ্বাস্যও লাগে তার কাছে।

গত বুধবার এক পডকাস্টে রোনালদো বলেন, 'এই বয়সে এখনো সর্বোচ্চ পর্যায়ে প্রতিন্দ্বন্দ্বিতা করে যাওয়ায় আমি গর্বিত বোধ করি। এটাই আমাকে চালিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা দেয়। গত ২০ বছরে আমার ক্যারিয়ারে দিকে তাকালে দেখবেন, আমার মানটা উঁচুতে আছে। ২০ বছর ধরে শীর্ষ পর্যায়ে থাকাটা অবিশ্বাস্য। আমি সেটা করছি এবং করতে থাকি। আমার কাছে এটি একটি বড় অর্জন। '  

'এই (শীর্ষ) পর্যায়ে থাকাটা সহজ নয়। নিজেকে তাড়না দিতে, অনুপ্রাণিত করতে, চালিয়ে যেতে, গোল করতে, ভালো ছন্দে থাকতে, উঠে আসা তরুণ সিংহদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে (আমার বিপক্ষে খেলার সময়, আমাকে দেখাতে চায় আমার চেয়েও শক্তিশালী এবং দ্রুতগতির তারা) শুধু শারীরিকভাবেই নয়, মানসিকভাবেও খুব ভালোভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। এটাই চ্যালেঞ্জ। '

ক্যারিয়ার দীর্ঘ করার জন্য প্রতিভা ও পরিশ্রম দুটোই দরকার বলে মনে করেন রোনালদো। একই সঙ্গে বজায় রাখতে হবে ধারাবাহিকতাও। তিনি বলেন,  'প্রতিভা ছাড়া পরিশ্রম এবং পরিশ্রম ছাড়া প্রতিভা কিছুই নয়। দুটোই একসঙ্গে থাকা দরকার। আমার মধ্যে দুটোই আছে। অবশ্য এটা বলতে পারি না, একটার চেয়ে অন্যটা বেশি আছে। ছোট ছোট বিষয়গুলোই পার্থক্য তৈরি দেয়। তাই ধারাবাহিকতা ধরে রাখা সবচেয়ে কঠিন জিনিস। '

এখনো খেলা চালিয়ে গেলেও রোনালদো অনেকের কাছে অনুপ্রেরণার নাম। তার মতো হতে চান অনেকেই। কিন্তু তা কি খুবই সহজ? রোনালদো বললেন, 'সবাই ক্রিস্টিয়ানো হতে চায়, কিন্তু তেমনটা হওয়া কঠিন। নিজেকে শৃঙ্খলার মধ্যে রাখাটা সবচেয়ে কঠিন ব্যাপার। কখনো কখনো নিজের মনের বিরুদ্ধে লড়াই করি আমি, আমরা সবাই মানুষ। অবশ্যই প্রতিদিন জিমে যেতে আমারও ভাল লাগে না, কারোরই লাগে না, কিন্তু তা করতে হবে। ' 

দৈনিক সরোবর/এসএস