add

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

চারদিকে গোলাগুলির শব্দ, ভয়ে থানচি ছাড়ছে মানুষ

 সরোবর ডেস্ক

 প্রকাশিত: এপ্রিল ০৬, ২০২৪, ০৫:০৫ বিকাল  

ভয়ে থানচি ছাড়ছে মানুষ' আজকের পত্রিকার শিরোনামে খবরে বলা হচ্ছে, চারদিকে গোলাগুলির শব্দ। ভয়ে ছোট বাচ্চাকে নিয়ে প্রথমে খাটের নিচে ঢুকে পড়ি। গোলাগুলি থেকে বাঁচতে গ্রামের অন্য মানুষের সঙ্গে জঙ্গলে আশ্রয় নিই। কথাগুলো বান্দরবানের থানচি উপজেলার ফজলপাড়া বাজারসংলগ্ন বাড়ির বাসিন্দা নুরবানু বেগমের।

তিনি বলেন, এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল বৃহস্পতিবার (৫ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে। সে সময় থানচি থানা লক্ষ্য করে সন্ত্রাসীরা গুলি ছোড়ে। জবাবে পাল্টা গুলি ছোড়ে পুলিশ। প্রাণভয়ে থানার পাশের ফজলপাড়া, হেডম্যানপাড়া ও বাঙালিপাড়ার প্রায় ৫০০ পরিবার জঙ্গলে আশ্রয় নেয়। থানা ও চেকপোস্টে হামলা আতঙ্ক আরো বাড়িয়েছে। শুক্রবার থানচি থেকে অনেকেই নিরাপদ আশ্রয়ে সরে গেছেন।

'কেএনএফের বিরুদ্ধ যৌথ অভিযান' এটি প্রথম আলোর শিরোনাম। খবরে বলা হচ্ছে পরপর তিন দিন কয়েকটি হামলা, ব্যাংক ডাকাতি, অপহরণ, গোলাগুলি ও অস্ত্র লুটের ঘটনার পর বান্দরবানে সশস্ত্র গোষ্ঠী কেএনএফের বিরুদ্ধে যৌথ অভিযান শুরু করতে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে আজ শনিবার সেখানে যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) নিজেদের শক্তিমত্তা জানান দিতে এবং অর্থ সংগ্রহের লক্ষ্যে বান্দরবানের রুমা ও থানচিতে পরপর এসব হামলা চালিয়েছে বলে মনে করছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকর্তারা।

র‍্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, কেএনএফের বিরুদ্ধে অভিযান চলমান। আজ সেনাবাহিনীর সহযোগিতা নিয়ে সমন্বিত অভিযান শুরু হবে।

ইত্তেফাক, সমকাল, যুগান্তর ও কালের কণ্ঠসহ একাধিক পত্রিকাও থানচির ঘটনা নিয়ে প্রধান শিরোনাম করেছে। এসব খবরে কেএনএফের বিভিন্ন তৎপরতার কথা বলা হয়েছে।

'দীর্ঘ ছুটিতে ঈদযাত্রা, বাস ট্রেন লঞ্চে ছুটছে ঘরমুখো মানুষ' যুগান্তরের শিরোনাম। খবরে বলা হচ্ছে, অফিস ছুটি হয়নি এখনো। পরিবার নিয়ে যেতে হবে গ্রামে। ঈদের ছুটি শুরু হলে একসঙ্গে সবাই বাড়ির পথ ধরবে। এতে বাড়বে চাপ। এজন্য পরিবার-পরিজনকে আগেভাগেই বাড়িতে পাঠাতে শুরু করেছেন অনেকে। শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনে অনেকেই ঢাকা ছেড়েছেন

শনিবারও রাজধানী ছাড়বেন উলে­খযোগ্যসংখ্যক মানুষ। ঈদের লম্বা ছুটি ঘিরে মানুষ শহর ছাড়তে শুরু করায় সড়ক, নৌ ও ট্রেনে যাত্রীর চাপ বেড়েছে। যাত্রী বেড়েছে আকাশপথেও।

তবে এখনো ঘরমুখো মানুষের উপচে পড়া ভিড় শুরু হয়নি। যারা ঢাকা ছাড়ছেন তাদের ১৩ দফা নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

'বাসের ভাড়া আদতে কমেনিএক পয়সাও' সমকালের শিরোনাম। প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, মিরপুর ১০ নম্বর থেকে গুলিস্তানের দূরত্ব ১১ দশমিক ৯ কিলোমিটার প্রতি কিলোমিটার ২ টাকা ৪৫ পয়সা হিসাবে এই পথের বাস ভাড়া ছিল ২৯ টাকা ১৬ পয়সা। সরকার নির্ধারণ করেছিল ২৯ টাকা। কিন্তু বাসে আদায় করা হতো ৩০ থেকে ৩৫ টাকা।

ডিজেলের দাম কমার কারণে কিলোমিটারে ৩ পয়সা ভাড়া কমায় এই পথের ভাড়া দাঁড়িয়েছে ২৮ টাকা ৮০ পয়সা অর্থাৎ কমেছে ৩৬ পয়সা। কিন্তু পয়সার ব্যবহার না থাকায় আগের মতোই ৩০ থেকে ৩৫ টাকা ভাড়া নেওয়া হচ্ছে বাসে।

শুধু মিরপুর-গুলিস্তান নয়; রাজধানীর কোনো রুটেই ডিজেলের দাম কমায় বাস ভাড়া কমেনি এক পয়সাও। কিলোমিটারে ৩ পয়সা বাস ভাড়া কমিয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ গত ১ এপ্রিল প্রজ্ঞাপন জারি করে। কিন্তু এখন পর্যন্ত ভাড়ার তালিকা হালনাগাদ করেনি সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

'গ্রামে গ্রামে লোডশেডিং ভোগান্তি'। মানবজমিনের শিরোনাম। এই খবরে বলা হচ্ছে, তীব্র গরমের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিদ্যুতের চাহিদা। এ অবস্থায় শুরু হয়েছে বিদ্যুতের লোডশেডিং। বিশেষ করে গ্রামগঞ্জে লোডশেডিং বেড়েছে বেশি।

ঢাকার ধামরাই উপজেলার হুমায়ুন খান নামের এক গ্রাহক অভিযোগ করে বলেন, তাদের এলাকায় বিদ্যুৎ আসা-যাওয়ার মধ্যে রয়েছে। গরম বাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বিদ্যুতের লোডশেডিং দেখা দিয়েছে।

জ্বালানি সংকট থাকায় বিদ্যুৎ উৎপাদনে ঘাটতি দেখা দিয়েছে। আর এতে হচ্ছে লোডশেডিং। এমনটা জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

'চলতি অর্থবছরে বিপিসির নিট মুনাফা হতে পারে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা' বণিক বার্তার শিরোনাম। খবরে বলা হচ্ছে, বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমেছে। এর ধারাবাহিকতায় মুনাফায় ফিরেছে জ্বালানি তেল আমদানি ও বিপণনে নিয়োজিত রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি)।

সংস্থাটির কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অর্থ মন্ত্রণালয় হিসাব করে দেখেছে, চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছর শেষে সংস্থাটির নিট মুনাফা হবে প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকা। যদিও চলতি অর্থবছরের বাজেট প্রণয়নের সময় প্রক্ষেপণ করা হয়েছিল ২০২৩-২৪-এ ১০ হাজার কোটি টাকারও বেশি লোকসান করতে পারে বিপিসি।

ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের শিরোনাম 'Safety audit ignored in road projects' অর্থাৎ 'সড়কের প্রকল্পে সেফটি অডিট উপেক্ষা করা হয়'। খবরটিতে বলা হচ্ছে, সড়ক ও জনপথ বিভাগ নিরাপত্তা অডিট ছাড়াই দুই লেনের মহাসড়ককে চার লেনে পরিণত করার জন্য বেশিরভাগ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগে ১২টি প্রকল্প রয়েছে, যাতে ৬৪ হাজার ৭৪৬ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট ৮৩৫ কিলোমিটার মহাসড়কের চওড়া দ্বিগুণ করা যায়। এর মধ্যে শুধু তিনটির নকশা পর্যায়ে নিরাপত্তা অডিট করা হয়েছিল।

নিউ এজের শিরোনাম 'Import restrictions bring no major let-up'. খবরে বলা হচ্ছে, বিগত দুই বছরে সরকার বিলাসবহুল পণ্য এবং অন্যান্য নীতির ‌ওপর আমদানি বিধিনিষেধ ডলারের ঘাটতি মোকাবিলা করতে এবং অর্থনৈতিক সংকট কমাতে ব্যর্থ হয়েছে।

বৈদেশিক মুদ্রার ঘাটতি এবং উচ্চ মূল্যস্ফীতির মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক ২০২২ সালের এপ্রিল থেকে ধারাবাহিক আমদানি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এর মধ্যে সেডান কার, স্পোর্টস ইউটিলিটি গাড়ি এবং বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত যানবাহনের মতো বিলাসবহুল এবং অপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের আমদানির বিপরীতে ১০০ শতাংশ মার্জিন আরোপ করেছিল।

'চাকরি যাবে দুর্বল ব্যাংকের এমডি, ডিএমডির' কালের কণ্ঠের শিরোনাম। খবরে বলা হচ্ছে, দেশে প্রথমবারের মতো ব্যাংক একীভূতকরণের জন্য নীতিমালা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এই নীতিমালায় একীভূতকরণের ফলে কী হবে তা স্পষ্ট করা হয়েছে। তথ্যসূত্র: বিবিসি

দৈনিক সরেবার/এনএ