ঢাকা, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯

‘পরিবহন খাতের সংস্কার না হ‌লে ই-টিকেটিং টিকিয়ে রাখা সম্ভব নয়’

সরোবর প্রতিবেদক  

 প্রকাশিত: নভেম্বর ২৪, ২০২২, ০৮:৪২ রাত  

বা‌সে ই-টিকেটিং ব্যবস্থাকে স্বাগত জানিয়েছে যাত্রী কল্যাণ সমিতি। সংগঠন‌টির আলোচনা সভা থে‌কে বলা হ‌য়ে‌ছে, পরিবহন খাতের সংস্কার না হ‌লে ই-টিকেটিং টিকিয়ে রাখা সম্ভব হবে না। ই-টিকিটে দূরত্ব অনুযায়ী ভাড়া আদায় নিশ্চিত করায় যাত্রী ভাড়া কমে আসছে, ফলে বাস মালিকের আয়ও কমে যাচ্ছে। এ পরিস্থিতিতে বাস কোম্পা‌নির 'জিপি' ও অদৃশ্য রুট খরচ বন্ধ করা না গেলে অনেক মালিককে লোকসান দিয়ে বাস চালাতে হবে। তাই চাঁদাবা‌জি বন্ধ না হ‌লে বা‌সের ভাড়া কমা‌নো ই-টিকিট টিকবে না। 

বৃহস্প‌তিবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনি‌টি‌তে যাত্রী কল্যাণ স‌মি‌তি আ‌য়ো‌জিত 'ঢাকা সিটিবাস সার্ভিসে ই-টিকিটিং: যাত্রীদের প্রত্যাশা' শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা ব‌লেন। 

স‌মি‌তির পর্যবেক্ষণে বলা হয়, ই-টিকেটিংয়ে কোন কোন পথে ভাড়া কমে আসার নজিরও রয়েছে। খিলক্ষেত থেকে মিরপুর-১১ পর্যন্ত ভাড়া ছিল ৩০ টাকা। ই-টিকেটিং চালুর পর ভাড়া ক‌মে হ‌য়ে‌ছে ২২ টাকা। আসাদগেইট থেকে মিরপুর-১ আগে ২৫ টাকা ভাড়া নেওয়া হলেও ই-টিকেটিং ভাড়া ১৩ টাকা হ‌য়ে‌ছে। শেওড়াপাড়া থেকে ধানমন্ডি-২৭ পর্যন্ত আগে ২০ টাকা ভাড়া নেওয়া হলেও ই টিকেটিং এ পথের ভাড়া ১৩ টাকা। মিরপুর-১ থেকে গাবতলী আগে ভাড়া ছিল ২০ টাকা। এখন তা ১০ টাকা। মিরপুর-১ থেকে সাভার আগে ভাড়া ছিল ৪০ টাকা, তা ৩০ টাকায় নেমে এসেছে।

সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, প্রতিটি টিকিটে বাসের নাম, নিবন্ধন নাম্বার, যাত্রা ও গন্তব্যের নাম, দূরত্ব, ভাড়ার অংক, ভ্রমণ তারিখ ও অভিযোগ কেন্দ্রের নাম্বারসমূহ থাকার কথা থাকলেও ই-টিকেটিং ব্যবস্থায় এসব পূর্ণাঙ্গ তথ্য নেই।  শুধুমাত্র ভাড়ার অংক লেখা রয়েছে। ফলে এসব টিকিট দিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হলে যাত্রীদের প্রতিকার পাওয়ার সুযোগ নেই।