add

ঢাকা, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১

স্বাস্থ্য খাতে সরকারি ব্যয় হাইতির চেয়েও কম

সরোবর প্রতিবেদক  

 প্রকাশিত: জুন ১১, ২০২৪, ০৮:৪৬ রাত  

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতে সরকারি ব্যয় হাইতির চেয়েও কম। জিডিপি‘র অনুপাতে স্বাস্থ্য বিষয়ক একটি গোলটেবিল বৈঠক থেকে জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারের একটি মিলনায়তনে ‘হেলথ এক্সপেন্ডিচার: এ ক্রিটিক্যাল চ্যালেঞ্জ ইন এনশিউরিং হেলথ কেয়ার ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক ওই গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

গোলটেবিল বৈঠকে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সিভিল সোসাইটির আহবায়ক এবং আইপাস বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ডা. সৈয়দ রোবায়েত। সূচনা বক্তব্য দেন ডেইলি স্টার বাংলার এডিটর গোলাম মোর্তজা।

মূল প্রবন্ধে ডা. সৈয়দ রোবায়েত বলেন, ২০০০ সালে বাংলাদেশে মোট জিডিপির শূন্য দশমিক ৫১ শতাংশ স্বাস্থ্য ব্যয়ের জন্য বরাদ্দ ছিল। এটা চড়াই উতরাই করে আরেকটু নিম্নগামী হয়েছে। ২০১৭ সালের পর থেকে ক্রমাগত বাজেট কমছে। আমাদের জিডিপি বৃদ্ধি পেয়েছে (ডলার হিসেবে) তবে ২০২১ সালে মোট জিডিপির শূন্য দশমিক ৪০ সরকারের স্বাস্থ্য ব্যয়।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বাজেট জিডিপি অনুপাতে নিম্নগামী। আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলোতে এই চিত্র হচ্ছে, ভুটানের স্বাস্থ্য বাজেটও নিম্নগামী। তবে এখনো ভুটান বাংলাদেশের চেয়ে পাঁচগুণ বেশি ব্যয় করে তাদের জিডিপি অনুসারে। ভারত এ ক্ষেত্রে ক্রমাগত উন্নতি করেছে। ভারতে বাংলাদেশের তুলনায় আড়াই গুণ বেশি সরকারি ব্যয় স্বাস্থ্য খাতে। শ্রীলংকা উত্থান পতনের মধ্যে থাকলেও আমাদের চেয়ে সাড়ে চারগুণ বেশি আছে। মালদ্বীপ এক্ষেত্রে ক্রমাগত উন্নতি করেছে। মিয়ানমারের ক্রমাগত উন্নতি হয়েছে। নেপালেও উন্নতি হয়েছে। পাকিস্তান উত্থান পতনের মধ্যে আছে। কিন্তু বাংলাদেশের আশে পাশে কোনো দেশ নেই, কারণ পাকিস্তান ছাড়া কোনো দেশের জিডিপি অনুপাতে সরকারি স্বাস্থ্য ব্যয় এক শতাংশের নিচে নেই।

মূল প্রবন্ধে তিনি আরো বলেন, ২০০০ সালে যদি আমরা দেখি, জিডিপি অনুপাতে মিয়ানমার ও নেপাল বাংলাদেশের তুলনায় স্বাস্থ্য খাতে সরকার কম ব্যয় করতো। বর্তমানে বাংলাদেশ সরকার এই অঞ্চলের মধ্যে সবচেয়ে কম ব্যয় করে।

তিনি আরো বলেন, আমরা যদি সারা পৃথিবীর সবগুলো দেশের তুলনা করি জিডিপি অনুপাতে তাহলে সবচেয়ে কম স্বাস্থ্য খাতে সরকার ব্যয় করে এমন রাষ্ট্রের তালিকায় প্রথম স্থানে যে দেশ আছে, তার নাম বেনিন। বেনিনের স্বাস্থ্য খাতে সরকারের বরাদ্দ শূন্য দশমিক ৩২ শতাংশ। দুর্ভাগ্যের ব্যাপার হচ্ছে বেনিনের পরের নামটি হচ্ছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতে সরকারি ব্যয় শূন্য দশমিক ৪০ শতাংশ। অর্থাৎ সারা বিশ্বে নিম্নতম স্বাস্থ্য খাতে সরকারের ব্যয়ের দিক থেকে বাংলাদেশ দ্বিতীয়। তালিকার তিন নম্বরে থাকা হাইতির স্বাস্থ্য খাতে সরকারি ব্যয় বাংলাদেশের থেকে বেশি। হাইতির স্বাস্থ্য খাতে সরকারি বরাদ্দ ব্যয় শূন্য দশমিক ৪৩ শতাংশ।

গোলটেবিল বৈঠকে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের নীতি নির্ধারক পর্যায়ের অধিকাংশ ব্যক্তি দেশের বাইরে চিকিৎসা গ্রহণ করায় দেশের স্বাস্থ্য খাতের অবস্থার উন্নতি হচ্ছে না। তারা যদি দেশেই চিকিৎসা গ্রহণ করতো তাহলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার চিত্র পাল্টে যেত।

বৈঠক থেকে বক্তারা রোগীদের পকেট থেকে চিকিৎসা ব্যয় কমানোর জন্য সরকারি বরাদ্দ এবং সরকারের ওষুধ কোম্পানি যাতে আরো বেশি ওষুধ উৎপাদন করে সে বিষয়ে জোর দেন। স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ বাড়ানোর পাশাপাশি বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ের জন্য যোগ্য এবং দক্ষ জনবল তৈরির বিষয়েও তারা গুরুত্ব আরোপ করেন।

দৈনিক সরোবর/এমএস