ঢাকা, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯

ঝিঁঝিঁ পোকা খাওয়ার অনুমতি পেল ইউরোপিয়ানরা

সরোবর ডেস্ক

 প্রকাশিত: জানুয়ারী ২৪, ২০২৩, ০৯:১৭ রাত  

ঝিঁঝিঁ পোকা খাওয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে ইউরোপের নাগরিকদের। প্রায় তিন বছর ধরে আলোচনা ও পর্যালোচনার পর চলতি সপ্তাহে এ অনুমতি দিয়েছে ইউরোপীয় ফুড সেফটি অথরিটি।

মঙ্গলবার থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাসিন্দারা এখন থেকে ভেজে অথবা গুঁড়ো করে ঝিঁঝিঁ পোকা খেতে পারবেন। সময় অনলাইন।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ফুড সেফটি অথরিটি জানিয়েছে, বিস্কুট, পিজ্জা, পাস্তা-ভিত্তিক পণ্য সম্পূর্ণ ভাবে ঝিঁঝিঁ পোকার গুড়ো ব্যবহার করা নিরাপদ। এর আগে ২০২১ সালে ইউরোপীয় খাদ্য নিরাপত্তা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, ঝিঁঝিঁ পোকা হিমায়িত বা শুকনো দুই অবস্থাতেই ব্যবহার করা যায়।

এশিয়ার কিছু দেশে ঐতিহ্যবাহী রন্ধনপ্রণালীর অংশ হলেও খাদ্য হিসেবে পোকামাকড়ের ব্যবহার ইউরোপে তুলনামূলকভাবে একেবারেই নতুন। জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন বিশ্বে কার্বন নিশ্বরণ কমানোর জন্যে পোকামাকড় পশু প্রোটিনের বিকল্প উত্স হতে পারে।

মার্কিন পরিবেশ বিজ্ঞানী গবেষক ভ্যালেরি স্টাল দাবি করেন, প্রোটিনের উৎস হিসাবে গবাদি পশুর তুলনায় পোকা অনেক সহজলভ্য ও পরিবেশবান্ধব। ‘সায়েন্টিফিক রিপোর্টস জার্নাল’-এ প্রকাশিত ঝিঁঝিঁ পোকা নিয়ে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন ভ্যালেরি স্টাল।

স্টাল জানান, এই গবেষণার জন্য ১৮ থেকে ৪৮ বছর বয়সী ২০ জন স্বেচ্ছাসেবীকে দু’সপ্তাহ ধরে খাবার দেওয়া হয়। তাদের এক অংশকে ঝিঁঝিঁ পোকা গুঁড়ো মেশানো খাবার দেয়া হয়, অন্য অংশকে সাধারণ খানার দেওয়া হয়। এর পরে দু’সপ্তাহ সবাইকে সাধারণ খাবার দেওয়া হয়। এরপর আবার দুই সপ্তাহ কাউকে পোকা মেশানো খাবার আর কাউকে সাধারণ খাবার দেওয়া হয়।

এরপর তাদের সবার রক্ত ও মলের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এবং সেই সঙ্গে পেটের স্বাস্থ্য নিয়ে কিছু প্রশ্ন করা হয়। গবেষণার ফলাফলে দেখা যায়, পোকা মেশানো খাবার খাওয়ার ফলে স্বেচ্ছাসেবীদের স্বাস্থ্যে কোনো খারাপ প্রভাব পড়েনি।

তবে তাদের পেটে ‘বাইফিডো ব্যাকটেরিয়াম অ্যানিমালিস’ নামের একটি এনজাইম এবং ক্যান্সার ও অবসাদের সঙ্গে সম্পর্কিত প্রোটিন ‘টিএনএফ-আলফা’-র পরিমাণে কিছু পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়।

গবেষণায় দেখা যায়, ঝিঁঝিঁ পোকা মেশানো খাবার খেলে এই এনজাইমের পরিমাণ বাড়ে ও প্রোটিনের পরিমাণ কমে। এনজাইমটি পেটের স্বাস্থ্য ভাল রাখে। ফলে ধরে নেয়া হয় ঝিঁঝিঁ পোকার গুঁড়ো মেশানো খাবারটি পেটের জন্য উপকারী।

দৈনিক সরোবর/ আরএস