ঢাকা, শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০ মাঘ ১৪২৯

সিট ধরার জেরে ইবি শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগের মারধর

ইবি প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: নভেম্বর ২৬, ২০২২, ০৭:৩৪ বিকাল  

ছবি: প্রতিনিধি

ক্লাসে সিট ধরাকে কেন্দ্র করে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে শাখা ছাত্রলীগকর্মীর বিরুদ্ধে। ভূক্তভোগী শিবলী আলী বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ সংলগ্ন রহিমের চায়ের দোকানের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

ভূক্তভোগী সূত্রে, সকালে বিভাগের শ্রেণীকক্ষে ছিট নিয়ে ভূক্তভোগীর সাথে অভিযুক্ত শাখা ছাত্রলীগ কর্মী আসিফ আহমেদ শিমুল বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। পরে ওই অভিযুক্তর মদদে আরবি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম রিয়ন সহ প্রায় ৫ থেকে ৭ জন ছাত্রলীগকর্মী তার উপর হামলা করে বলে অভিযোগ ভূক্তভোগীর। আহত অবস্থায় তার বন্ধুদের সহযোগিতায় বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেলে নিয়ে গেলে সেখানে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

এমতাবস্থায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন ভূক্তভোগী শিবলী। এই ঘটনার সুষ্ঠুবিচার চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভাগীয় চেয়ারম্যান, অনুষদের ডীন, ছাত্র উপদেষ্টা ও প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগপত্র দেন তিনি। অভিযুক্ত আসিফ আহমেদ শিমুল বলেন, ক্লাসের বেঞ্চ থেকে আমার ব্যাগ সরিয়ে শিবলী ওখানে বসে। ক্লাস শেষে তার সাথে কথা কাটাকাটি হয়। পরে রিয়ন আসলে তার সাথেও কথা কাটাকাটি হয়। এ সময় শিবলীর হাতের আচঁড় লাগে রিয়নের কাঁধে। পরে ওটা মিটমাট করে আমি রুমে চলে আসি। পরে কি হয়েছে তা আমি জানিনা।

অভিযুক্ত রিয়ন বলেন, সকালে ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের সামনে দিয়ে যাচ্ছিলাম। এ সময় শিমুল ভাইয়ের সাথে ঝামেলা হতে দেখে আমি সেখানে যাই। এ সময় তার (শিবলী) হাতের আঘাত আমার কাঁধে লাগলে আমি তাকে সেখানেই অনিচ্ছাকৃতভাবে একটু মারছিলাম। ৬ থেকে ৭ জনকে নিয়ে মারার ঘটনাটি সত্য নয়। এ বিষয়ে ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শেলীনা নাসরীন বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ বিষয়ে ভূক্তভোগী ও অভিযুক্তদের সাথে কথা বলছি। আগামীকাল এটা নিয়ে বসবো।

প্রক্টর অধ্যপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, অভিযুক্তের কাছ থেকে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে পর্যাবেক্ষণ কমিটি করেছি। কমিটির প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে পরবর্তীতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দৈনিক সরোবর/আরএস