add

ঢাকা, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০

২০ টাকা দাম এক লেবুর

শরীয়তপুর প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: মার্চ ২৪, ২০২৩, ০৪:২৮ দুপুর  

সারাদিন রোজা রেখে ইফতারিতে অবশ্যই থাকা চাই লেবুর শরবত। এই লেবুর দাম দুইদিন আগেও ছিল ১২০ টাকা ডজন, অর্থাৎ ১২টা লেবু ১২০ টাকা। সেই হিসেবে প্রতিটি লেবুর দাম ১০ টাকা।

কিন্তু রোজার প্রথমদিন সকালেই দাম বেড়ে দ্বিগুণ হয়ে গেছে। শুক্রবার লেবুর ডজন বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকা। তাতে একটি লেবুর দাম পড়ে ২০ টাকা।পাশাপাশি বেগুন, শসা, করলা, কাঁচামরিচ, কুমড়োসহ অন্যান্য শাক-সবজি ও মাছের দামও বেশ বাড়তি। বেড়েছে পাকা কলার দামও।

শুক্রবার সকালে শরীয়তপুর সদর পালং বাজারসহ বিভিন্ন উপজেলার বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায়, দুদিন আগেও লেবুর দাম ছিল ১২০ টাকা ডজন। রোজার শুরুর দিনই দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকা ডজন।

প্রতি কেজি বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৯০-১২০ টাকা দরে। একইভাবে ৪৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া কাঁচামরিচ এখন ৯০-১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ৪০ টাকা বেড়ে ৮০ টাকা হয়েছে করলার কেজি। শসা বিক্রি হচ্ছে ৬০-৭০ টাকা কেজি। তবে প্রতি কেজি টমেটো বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকা দরে। ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়ে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৪০-২৫০ টাকায়। সোনালী মুরগি বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৩৫০ টাকা দরে।

মাছ বাজারে সুরুজ (৩০) নামে এক ক্রেতা বলেন, মাছ আমাদের কেনার সামর্থ্যের বাইরে চলে যাচ্ছে। ক্রেতাদের অভিযোগ ব্যবসায়ীরা রমজান মাস সামনে রেখে ইচ্ছা করেই পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়।

তবে ব্যবসায়ীরা বলেন ভিন্ন কথা। শরীয়তপুর সদরের এক কাঁচামাল ব্যবসায়ী রহিম মাতবর বলেন, আমরা রোজার মাস উপলক্ষে কোনো পণ্য দাম বাড়িয়ে বিক্রি করি না। বরং মোকাম থেকে যখন যে দামে ক্রয় করি, ওই দামেই আমরা ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করি