add

ঢাকা, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১

প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি

‘বুড়িমারী এক্সপ্রেসের’ ৩ কোচ পৌঁছাল লালমনিরহাটে

লালমনিরহাট প্রতিনিধি

 প্রকাশিত: নভেম্বর ২০, ২০২৩, ০৮:৫১ রাত  

ছবি: প্রতিনিধি

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির ‘বুড়িমারী এক্সপ্রেস’ ট্রেনের তিন কোচ লালমনিরহাটে পৌঁছাল। রবিবার (১৯ নভেম্বর) বিকেলে বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেনের জন্য তিনটি কোচ লালমনিরহাট স্টেশনের প্লাটফর্মে পৌঁছায়। এটি চালু হলে আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবে রেলওয়ের বিভাগীয় শহর লালমনিরহাট।

স্থানীয়রা জানান, ভারতীয় সীমান্ত ঘেঁষা জেলা লালমনিরহাট রেলওয়ের একটি বিভাগীয় শহর। রেলের শহর হলেও ঢাকার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগে তেমন কোনো আন্তঃনগর ট্রেন ছিল না। লালমনি এক্সপ্রেস নামে একটি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করলেও তা একটি মাত্র রেক দিয়ে সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে লালমনিরহাট স্টেশন ছেড়ে মধ্যরাতে ঢাকায় পৌঁছায়। আবার একই রেক ফিরে আসে। ফলে রাতের আন্তঃনগর ট্রেন সুবিধা বঞ্চিতই ছিল রেলওয়ের বিভাগীয় শহর লালমনিরহাট।

দীর্ঘ প্রায় একশ কিলোমিটার লম্বা এ জেলার এক কোনায় জেলা সদর। ফলে শহরের লোকজন লালমনি এক্সপ্রেসের সুবিধা পেলেও বাকি চারটি উপজেলা ও বুড়িমারী স্থলবন্দরের তথা ভারতগামী পাসপোর্টধারী যাত্রীরা বঞ্চিত সুবিধা পান না। তাছাড়া দিনে ট্রেন থাকলেও নেই রাতের কোনো আন্তঃনগর ট্রেন।

এ কারণে জেলাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি, সীমান্তবর্তী উপজেলা পাটগ্রামের বুড়িমারী স্টেশন থেকে একটি আন্তঃনগর ট্রেন চলুক। যা ভারতে পাসপোর্টধারী যাত্রীদের যাতায়াত এবং বুড়িমারী স্থলবন্দরের ব্যবসা বাণিজ্যের পথ সুগম করবে। জেলাবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গত ২০১১ সালের ১৯ অক্টোবর পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম আঙ্গোরপোতা সফরে এসে পাটগ্রাম জসিম উদ্দিন সরকারি কলেজ মাঠে জনসভায় দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখানে একটি আন্তঃনগর ট্রেন চালু করার প্রতিশ্রুতি দেন।

প্রধানমন্ত্রীর এ প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে দীর্ঘদিন ধরে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেন স্থানীয়রা। অবশেষে সেই স্বপ্ন পূরণে সম্প্রতি রেলমন্ত্রী বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেন চালুর ঘোষণা দেন। যা আগামী ১ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করবে বলে জানান রেলমন্ত্রী।

অবশেষে অচিরেই চালু হচ্ছে আন্তঃনগর ট্রেন বুড়িমারী এক্সপ্রেস। ট্রেনটি চালু করতে রোববার তিনটি কোচ লালমনিরহাট স্টেশনের প্লাটফর্মে পৌঁছেছে। বাকি কোচ ও রেক সময়মতো পৌঁছে যাবে বলে জানিয়েছেন রেলওয়ের কর্মকর্তারা। এরই মধ্যে ট্রেনটি চালুর সময়সূচিও রেলওয়ে দপ্তরে সংযুক্ত হয়েছে এবং তা সঠিক সময় চালু করতে দফায় দফায় জুম মিটিং চলছে রেলভবনে।

বুড়িমারী স্থলবন্দরের ব্যবসায়ী রোকন উদ্দিন বলেন, বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেন চালু হলে বন্দরের ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে। বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেন চালু হচ্ছে শুনে ভালো লাগছে। প্রতিদিন শত শত পাসপোর্টধারী যাত্রী ও ব্যবসায়ী এ রুটে যাতায়াত করেন।

লালমনিরহাট রেলওয়ের সহকারী বাণিজ্যিক কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, বুড়িমারী এক্সপ্রেস ট্রেনটি চালু করতে রেলভবন থেকে দফায় দফায় জুম মিটিং হচ্ছে লালমনিরহাট রেলওয়ে বিভাগীয় কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে। রোববার তিনটি কোচ পৌঁছেছে। পর্যায়ক্রমে বাকি কোচগুলোও পৌঁছে যাবে। আপাতত একটি মাত্র ইন্দোনেশিয়ান রেকে চলবে এ ট্রেন। যা লালমনিরহাট রেলওয়ে স্টেশন থেকে যাত্রা শুরু করবে। বুড়িমারী স্থলবন্দর তথা বাকি চার উপজেলার যাত্রীদের জন্য আপাতত শাটল ট্রেন যুক্ত থাকবে। পরে ডাবল রেক হলে এটি বুড়িমারী স্টেশন পর্যন্ত বাড়ানো হবে। ট্রেনটি লালমনিরহাট স্টেশন থেকে রাত ৯টায় ১০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যাবে। বুধবার সাপ্তাহিক ছুটি নির্ধারণ করা হয়েছে।

দৈনিক সেরাবর/এনএ